গোবরডাঙ্গা পৌরসভার প্রথম পৌরপিতা শ্রীশচন্দ্র বিদ্যারত্ন ১৮৭০ সাল ।

 

    তিনি ছিলেন একজন বাঙালি সমাজ সংস্কারক এবং ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের সহযোগী। ১৮৫৬খ্রিস্টাব্দে বিধবা বিবাহ আইন অনুমোদন লাভ করলে, তিনিই প্রথম বিধবা বিবাহ করেন। শ্রীশচন্দ্র বিদ্যারত্ন উত্তর চব্বিশ পরগণা জেলার গোবরডাঙ্গা, খাঁটুরার বাসিন্দা ছিলেন। তাঁর পিতা খ্যাতনামা কথক রামধন তর্কবাগীশ । তিনি সংস্কৃত কলেজের অধ্যাপক ছিলেন। ১৮৫৬খ্রিস্টাব্দে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের উদ্যোগে বিধবা বিবাহ আইন সরকারী অনুমোদন লাভ করে। তারপর শ্রীশচন্দ্র বিদ্যারত্ন প্রচলিত সামাজিক প্রথা এবং সমাজ সংস্কারকে অগ্রাহ্য করে সর্বপ্রথম বিধবা বিবাহ করতে এগিয়ে আসেন। ৭ই ডিসেম্বর ১৮৫৬ খ্রিস্টাব্দে কলকাতায় রাজকৃষ্ণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সুকিয়া স্ট্রীটের বাড়িতে বিদ্যাসাগর, রমাপ্রসাদ রায়, নীলকমল মুখোপাধ্যায়, কালীপ্রসন্ন সিংহ, প্যারীচাঁদ মিত্র, রামগোপাল ঘোষ প্রমুখ ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে বর্ধমানের বাল্য-বিধবা কালীমতীকে তিনি বিবাহ করেন।

Gobardanga Municipality was eastablished in British India in 1870 (20.04.1870). Large town area started its journey in 16th century A.D.this town almost 500 years old,earned great honourin terms of education and culture.Sirish Chandra Vidyaratna a renowned person of this area look great initiave to form a separate subdivision in Barasat, which included the village Gobardanga into its jurisdiction.Later, the Municipality was eastablished in 1 bigha land of the landlord Saradaprasanna Mukhopadhya.At that moment the municipality had 2200 population in its 4 wards.